ইসলামপুর – চোপড়া জুড়ে তৃনমূলের গোষ্টিকোন্দলে সরগরম এলাকা

দীপঙ্কর দে (টী.এন.আই ইসলামপুর) । টি.এন.আই সম্পাদনা শিলিগুড়ি

বাংলাডেস্ক, টী.এন.আই ইসলামপুর ২৭শে এপ্রিল, ২০১৮: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নতুন পুরানোর বিবাদ ভুলে যোগ্য প্রার্থী নির্বাচনের নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সিপিএম ও কংগ্রেস থেকে তৃণমূলে যোগ দেওয়া নতুনদেরই টাকার বিনিময়ে প্রার্থী করার অভিযোগে সরগরম ইসলামপুর। চোপড়া বিধানসভা ও ইসলামপুর ব্লকের গোবিন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের টিকিট ও প্রতিক প্রদানকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের গোষ্টিকোন্দল প্রকাশ্যে। চোপড়ার বিধায়ক হামিদুল রহমান গোষ্ঠী বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ মিছিল করলো ইসলামপুর শহর জুড়ে। এনিয়ে ইসলামপুর চোপড়া জুড়ে তৃণমূল শিবিরে তীব্র রাজনৈতিক সংকট তৈরি হয়েছে। জানা গিয়েছে, ইসলামপুর ব্লকের গোবিন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েত চোপড়া বিধানসভার অন্তর্গত। গোবিন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে ১৬টি আসন ও দুটি পঞ্চায়েত সমিতির আসন রয়েছে। পঞ্চায়েত নির্বাচন শুরুর ঘোষণা হতেই গোবিন্দপুর এলাকায় শাসকদল তৃণমূলের টিকিট নিয়ে দলের অন্দরেই শুরু হয় গোষ্টিকোন্দল। একদিকে হামিদুল গোষ্ঠী জুবের আলম অন্যদিকে ইসলামপুর ব্লক তৃণমূল সভাপতি জাকির হোসেন গোষ্ঠী নুরউদ্দিন। গোষ্টিকোন্দল অন্দরে থাকলেও এদিন তা প্রকাশ্যে চলে আসে। দুপক্ষই মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছে। এখন লড়াই প্রতীক পাবার। সব মিলিয়ে তৃণমূলের এই গোষ্টিকোন্দলকে ঘিরে বড়সড় গন্ডগোলের আশঙ্কা করছে রাজনৈতিক মহল। হামিদুল গোষ্ঠী তৃণমূল নেতা জুবের আলম বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ থাকা সত্তেও পুরানো তৃণমূলীদের গুরুত্ত দেওয়া হচ্ছে না। গোবিন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েত চোপড়া বিধানসভার মধ্যে পড়ে। তাই আমাদের দাবি বিধায়ক হামিদুল সাহেবই আমাদের প্রতীক বিতরণ করুক। হামিদুল গোষ্ঠী তৃণমূল নেতা পুষ্পনাথ সিংহ বলেন, গোবিন্দপুর অঞ্চল সভাপতি নুরউদ্দিন ইসলামপুর ব্লক সভাপতি জাকির হোসেনের সাথে মিলে টাকার বিনিময়ে দলে নতুন আসা লোকদের টিকিট দিচ্ছে। আমরা পুরানো তৃণমূলীদের পাত্তা দিচ্ছে না। গোবিন্দপুরের তৃণমূল অঞ্চল সভাপতি নুরউদ্দিন বলেন, টাকার বিনিময়ে নতুনদের টিকিট দেওয়ার অভিযোগ মিথ্যা। ওরাই টাকার খেলা খেলছে। আমরাও লিস্ট দিয়েছি ওরাও লিস্ট দিয়েছে। জেলা সভাপতিকে জানিয়েছি উনিই ঠিক করবেন কে প্রতীক পাবে। ইসলামপুরের বিধায়ক কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, এক কোটি টাকা দিয়েও কেউ আমার কাছ থেকে একটি পঞ্চায়েতের টিকিট পাবে না। আমি চাই গোবিন্দপুরে শান্তিপূর্ণ ভোট হোক। গোবিন্দপুরে কোনও বিরোধী নাই তাই যে প্রার্থী হবে সেই জিতবে। তাই সবাই টিকিটের দাবি করছে। আমি হামিদুল সাহেবের সাথে আলোচনা করে বিষয়টির সমাধান শীঘ্রই করে দেব।

ছবিঃ দীপঙ্কর দে (টী.এন.আই)

Facebook Comments
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!