হামলার পর গ্রেপ্তার, পালটা অগ্নিসংযোগের অভিযোগ, ইত্যাদিতে মেখলীগঞ্জ উত্তপ্ত

স্বপন রায় বীর (টী.এন.আই মেখলীগঞ্জ) । টি.এন.আই সম্পাদনা শিলিগুড়ি

বাংলাডেস্ক, টী.এন.আই মেখলীগঞ্জ ১৭ই এপ্রিল, ২০১৮: শাসক দল তৃণমূল এবং বিজেপির সংঘর্ষে অগ্নিগর্ভ মেখলীগঞ্জের উচলপুকুরি এলাকা৷ আশঙ্কাজনক এক বিজেপি কর্মী। পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীর বাড়িতে অগ্নি সংযোগ এর অভিযোগ। এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়েছে কমপক্ষে তিন জন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী। এমন ঘটনা কে কেন্দ্র করে কুচবিহার জেলার মেখলীগঞ্জ উত্তপ্ত৷ অভিযোগ আজ দুপুর বারোটা নাগাদ মেখলীগঞ্জের উচলপুকুরি অঞ্চলের বেদপারা এলাকার এক নব বিজেপি কর্মীর বাড়িতে তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকরা প্রকাশ্য হামলা চালায়। হামলায় জখম হন আনন্দ দাস নামে এক বেক্তি এবং তার স্ত্রী৷ আহত আনন্দ দাস এখন বিজেপি কর্মী তবে তিনি পূর্বে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস এর কর্মী ছিলেন। গত এক সপ্তাহ আগেই বিজেপি দলে যোগ দেন৷ অভিযোগ বিজেপি দলে যোগ দেবার পর একের পর এক প্রাণনাশের হুমকি আসে স্থানীয় তৃণমূল সমর্থকদের কাছ  থেকে৷ বাড়ির পাশে লাগানো বিজেপি ফ্লাক সড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেওয়া হয়। আজকের ঘটনায়, বিজেপি নেতা শ্রী প্রিয়দাস বর্মণ জানান “তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা আজ আমাদের নবীন বিজেপি কর্মীর বাড়িতে এসে যেভাবে হামলা চালালো, এটা আমরা মানছি না। তৃণমুলী সন্ত্রাসকে ছেড়ে কথা বলব না। আমরা এর বিচার চাই। পুলিশ প্রশাসনের কাছে আবেদন যাতে দোষীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হয়”৷

অন্যদিকে, এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এক তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীর বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। অভিযোগ স্থানীয় বিজেপি কর্মীরা জোর করে তৃণমূল সমর্থকের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়।  যদিও অগ্নি সংযোগ এর ঘটনার দায় পুরোটাই তৃণমূল কংগ্রেস এর সাজানো ঘটনা বলে দাবি করা হয় বিজেপির তরফ থেকে৷ তবে ওই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, ওই বাড়ির মালিক নিজেই নিজের ঘরে আগুন লাগিয়ে দেন। ঠিক এক ঘন্টা আগেই বিজেপি কর্মীর বাড়িতে হামলার অভিযোগে এই বাড়ি থেকেই এক বেক্তিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। তারপরেই অগ্নি সংযোগ এর ঘটনা ঘটে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ৷ উত্তপ্ত এই পরিস্থিতিতে মেখলীগঞ্জ থানার পুলিশ প্রথমে বিজেপি কর্মীর হামলার অভিযোগে তিন জনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পরেই ঘটনার মোর পাল্টে যায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীর বাড়িতে অগ্নিসংযোগের অভিযোগে। ঘটনাস্থলে যায় দুটি দমকলের ইঞ্জিন এবং মেখলীগঞ্জ থানার পুলিশ৷ উভয় পক্ষের অভিযোগ পেয়ে পুরো ঘটনার তদন্ত করছে মেখলীগঞ্জ থানার পুলিশ৷ অন্যদিকে, হামলার ঘটনায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় আনন্দ দাস কে জলপাইগুঁড়িতে রেফার কড়া হয় বলে জানা যায়৷ উত্তপ্ত ওই এলাকায় মোতায়ন করা হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী৷ ঘটনা প্রসঙ্গে মেখলীগঞ্জ তৃণমূল কংগ্রেস এর ব্লক কনভেনর শ্রী উদয় রায় জানান -“আজকের ঘটনায় বিজেপি শান্ত পরিবেশ কে অশান্ত করার চেষ্টা করছে৷ তিনি আরও জানান “জমি সংক্রান্ত বিবাদের জেরে এই ঘটনা, আর সেখানে বিজেপি নেতারা রাজনৈতিক রং লাগিয়ে উত্তপ্ত করছে এলাকা। এটা মানা যায়না, ভারতীয় গণতন্ত্রে এটা কাম্য নয়৷ মেখলীগঞ্জে বিজেপি ভোট বাংক নেই, তাই হাঙ্গামা চালিয়ে ভোট দখলের লড়াই করছে। সাধারণ মানুষ এর জবাব দেবে”৷

ছবিঃ স্বপন রায় বীর (টি.এন.আই)

Facebook Comments
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!