অসমে বাঙালী খেদাও এর বিরুদ্ধে কার্যত আলিপুরদুয়ারে মুখ্যমন্ত্রীর জনসভা

অরুনাংশু মৈত্র (টী.এন.আই ফালাকাটা) । টি.এন.আই সম্পাদনা শিলিগুড়ি

বাংলাডেস্ক, টী.এন.আই ফালাকাটা ৯ই জানুয়ারি ২০১৮: আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে আলিপুরদুয়ার জেলা সফরে এসে বিজেপিকে তুলোধোনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। আসাম থেকে বাঙ্গালি খেদাও এর নামে মুখ্যমন্ত্রী মন্তব্য করায় অসমে যে মামলা দায়ের হয়েছে তার চ্যালেঞ্জ হিসেবেও অসম-বাংলা সীমান্তে এদিনের মূক্ষ্যমন্ত্রির সভা বলে অভিমত রাজনৈতিক মহলের। অপরদিকে আলিপুরদুয়ার জেলায় মুখ্যমন্ত্রীর সভা থেকে বিজেপি শাসিত অসম রাজ্যর দুরত্ব বড়জোর ১০ কিমি। বাঙালি খেদাও প্রশ্নে বিজেপি শাসিত অসম সরকারকে তীব্র আক্রমন করে মূক্ষ্যমন্ত্রি বলেন বাংলা ভালো থাকলে অসম ভালো থাকবে। অসমে গণ্ডগোল হলে বাংলায় প্রভাব পড়ে।বাংলায় কোন গন্ডগোল হয়না।অসমে যখন জাতিদাঙ্গা হয়েছিল তখন অসমের মানুষদের আমরা খাওয়া পড়া দিয়ে বাচিয়ে রেখেছিলাম। আর ওরা আমাদের ভাই বোনদের অসম থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছে। অসমের প্রচুর মানুষ বাংলায় শান্তিতে কাজ করছে। বিজেপি জাতি দাঙ্গার দল। একটা মিথ্যার দল। আদিবাসি অধ্যুষিত আলিপুরদুয়ার জেলার চা বলয়ে বিজেপির আর.এস.এস সংগঠনের ছত্রছায়ায় এক্কেল নামে একটি ধর্মিয় স্বেচ্ছাসেবি সংস্থা তারা শিক্ষা দানের নামে আদিবাসি, দলিতদের আর,এস,এস করছে বলে অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী। আদিবাসি, দলিতদের উদ্দ্যেশে মূক্ষ্যমন্ত্রি বলেন যারা এন.জি.ওর নাম করে ভুল পথে চালিত করছেন তাদের কথায় ভুলবেন না। বিধানসভা নির্বাচনের পূর্বে বিজেপি বলেছিল বন্ধ সাত খানা চা বাগান ওরা খুলে দেবে। একটা বাগান ও খোলেনি। বরং নতুন করে বাগান বন্ধ হয়েছে। এদিন মুখ্যমন্ত্রী ২৫ টি প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। ৩২ টি প্রকল্পের শিলান্যাস করেন। এদিনের সভা থেকে আলিপুরদুয়ার জেলার প্রশাসনিক ভবন “ডুয়ার্স কন্যা” র  উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী। ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে দুই বছরে তৈরি হয়েছে সাত তলা এই প্রশাসনিক ভবন। এখন থেকেই জেলার সকল সরকারি কাজ হবে। একই ছাদের তলায় থাকছে জেলার সমস্ত দপ্তর। রাজ্যে নবান্নের পর এটাই হতে চলেছে একই ছাদের তলায় সকল সরকারি দপ্তর একসাথে।

ছবিঃ অরুনাংশু মৈত্র (টী.এন.আই)

Facebook Comments
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!