সভা করার অনুমতি পেলনা গ্রেটার, বাধ্য হয়ে অন্যত্র সভা

স্বপন রায় বীর (টী.এন.আই মেখলীগঞ্জ) । টি.এন.আই সম্পাদনা শিলিগুড়ি

বাংলাডেস্ক, টী.এন.আই মেখলীগঞ্জ ২রা জানুয়ারি ২০১৮: ফের বিতর্কে কোচবিহার গ্রেটার আন্দোলন৷ এক কর্মসূচি ঘিরে বিতর্ক তুঙ্গে৷ জানা যায় – কোচবিহার জেলার বিভিন্ন প্রান্তে গ্রেটারের বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়৷ তেমন করে কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ ব্লকের জামালদহে একটি  মোটেলে গ্রেটার কর্মী এবং ব্লক স্তরের বিশিষ্ট বেক্তিদের নিয়ে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়৷ আলোচনা সভা করার জন্য প্রশাসনিক অনুমতির জন্য মোটেল এর এক আধিকারিক সভা করার অনুমোদন দেন৷ এর আগেও ওই মোটেল এ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা সভা হয়েছিল৷ কিন্তূ কোচবিহার গ্রেটার এর কর্মসূচির অনুমোদন মিললেও আয়োজিত সভার কয়েকদিন আগে ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুমোদন বাতিল করার জন্য গ্রেটার নেতাদের জানান হয়৷ এই প্রসঙ্গে গ্রেটার নেতা পরেশ বর্মণ, রবি রায় প্রমূখরা জানান – একটি আলোচনা সভা করার জন্য আমাদের জামালদহের ওই মোটেল থেকে লিখিত অনুমতি দেয় এবং অগ্রিম বুকিং এর জন্য ২০০ টাকা ভাড়া বাবদও নিয়ে নেন৷ এদিকে সভার দিনের ঠিক আগেই ব্লক প্রশাসন থেকে মোটেল এর দায়িত্বে থাকা কর্মীদের জানিয়ে দেন এই অনুমতি ফিরিয়ে নিয়ে নিতে৷ এর পর মোটেল থেকে গ্রেটার নেতা দের জানিয়ে দেয়া হয় তাদের অনুমোদন বাতিল করতে হবে৷ অন্যদিকে মেখলিগঞ্জের গ্রেটার সমর্থক পরিমল বর্মণ জানান – বি .ডি.ও  নিজেই বন্ধ করে দিলেন গ্রেটার এর কর্মসূচি৷ এবার আমাদের এই কর্মসূচি দিন সহ জায়গা পরিবর্তন করতে হচ্ছে৷ একের পড় এক কমসূচি পালন করছে অ-রাজনৈতিক সংগঠন গ্রেটার৷ দাবি একটাই হস্তান্তর কৃত কোচবিহারের আলাদা রাজ্যের দাবি৷ জানা যায় – কোচবিহারের গ্রেটার প্রতিনিধিরা অনুষ্ঠান, করার প্রথম অনুমতি পায় মোটেল কতৃপক্ষ থেকে৷ দিন পেড়িয়ে যাবার পর হঠাতই মোটেল থেকে জানান হয় বিশেষ কারণে গ্রেটার এঁর কর্মসূচি এই মোটেল এ হবেনা, অনুমিত ফিরিয়ে নিতে হবে৷ গ্রেটার নেতারা জানতে চাইলে মোটেল থেকে জানান হয় মেখলিগঞ্জ বি.ডি.ও শ্রী বিরূপাক্ষ মিত্র নির্দেশ দেন কোন প্রকার গ্রেটার এর কাজ বা কর্মসূচির জন্য এই মোটেল ব্যবহিত হবে না৷ অন্যদিকে, শেষ মেস গ্রেটার এর পক্ষ থেকে সংবাদ মাধ্যমকে জানান হয় আগামী ৭ই জানুয়ারি কোচবিহার এর কেশারহাট এলাকায় তাদের আলোচনা সভা অনুষ্টিত হবে৷ উল্ল্যেখযোগ্য যে এই প্রসঙ্গে মেখলিগঞ্জ বি ডি ও বিরূপাক্ষ মিত্র জানান – প্রশাসনিকভাবে আমরা তেমন অনুমতি দেইনি৷ জামালদহ মোটেল এ তেমন ভাবে অনুমোদন দেয়া হয়নি৷ প্রশাসনিকভাবে এমন উত্তরের প্রসঙ্গে গ্রেটারের মেখলিগঞ্জ সম্পাদক শ্রী পরিমল বর্মণ  জানান – অনুমোদনের পত্র আমাদের কাছে আছে৷ ঠিক কি কারনে আমাদের সভার কাজে হয়রানি করালো তা বোঝো যাচ্ছে না৷

ছবিঃ স্বপন রায় বীর (টী.এন.আই)

Facebook Comments
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!